প্রতিদিনের খাবার মেনুতে ডিম রাখুন : বিশ্ব ডিম দিবসের আলোচনায় বক্তারা

বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে আজ সোমবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকালে সদর উপজেলার পলশা আলিম মাদরাসায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোস্তাফিজুর রহমান।
পলশা আলিম মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. এজাবুল হকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেন, পলশা আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মো. একরামুল হক, প্রয়াসের প্রকল্প ব্যবস্থাপক ফারুক আহম্মেদ ও প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মনোয়ার মাসুদ।
এ-সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রয়াসের ইউনিট-১ এর ম্যানেজার প্রসন্ন কুমার পাল, সংস্থাটির প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাজিন বিন রেজাউল, মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, মাদরাসার প্রভাষক মুহাম্মদ জাকেরুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক মো. আব্দুস সোবুর, মো. সেরাজুল ইসলাম, মো. আব্দুস সামাদ, মো. ফজলে বারী, মো. নাইমুল হক, মো. আব্দুল মতিন, মো. আমিরুল ইসলাম, মো. মজিবুর রহমান, মুহাম্মদ আব্দুল মুমীনসহ মাদরাসার শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ডিমের যে উপকারিতা রয়েছে, ডিম নিয়ে যে বিভিন্ন রকম কুসংস্কার আছে তা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, বাচ্চাদের মস্তিষ্ক যদি উর্বর না হয় তাহলে তারা ভালো কিছু করতে পারবে না। কিন্তু এই মস্তিষ্ক উর্বর করার জন্য কিছু খাবার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই খাবারগুলোর মধ্যে একটি উপাদান হচ্ছে কোলিন। এই কোলিন মস্তিষ্কের যে সেল রয়েছে সেগুলো তৈরিতে সহায়তা করে, মস্তিষ্ক উর্বর করে। এই কোলিন ডিম ছাড়া অন্য কোনো খাবার নেই। তাই বাচ্চাদের মস্তিষ্ক উর্বর করতে মা ও বাচ্চাদের প্রতিদিন ডিম খাওয়াতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের সবার প্রতিদিনের খাবার তালিকায় কমপক্ষে ১টি করে ডিম রাখতে হবে। আমরা প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় যদি ডিম, দুধ ও মাংস রাখতে পারি তাহলে আমরা মেধাবী, সুস্থ-সবল জাতিতে পরিণত হব।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রয়াসের নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেন বলেন, ডিম খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে, মেধা শক্তি বাড়ে। তাই আমাদের প্রতিদিন ডিম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। এই ডিম দিবস পালন করার উদ্দেশ্য হলো এই কথাগুলো আপনাদের মাঝে তুলে ধরা, সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়া।
সভাপতির বক্তব্যে পলশা আলিম মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. এজাবুল হক বলেন, এখানকার বাবা-মা তাদের ছেলেমেয়েদের খাবার জন্য প্রতিদিন ৫-১০ টাকা দেয়। আমি বাচ্চাদের বলব তোমরা দোকানের জুস কিংবা মুখরোচক খাবার না কিনে চেষ্টা করবে ডিম কিনে খাবার। তাহলে তোমাদের মেধা শক্তি বৃদ্ধি পাবে।
আলোচনা শেষে শিক্ষার্থীদের প্রত্যেককে মুরগি ও কোয়েল পাখির সেদ্ধ ডিম দেয়া হয় এবং মাদরাসা প্রাঙ্গণ হতে র‌্যালি বের করা হয়।
উল্লেখ্য, প্রতি বছরের অক্টোবর মাসের ২য় শুক্রবার বিশ্ব ডিম দিবস পালিত হয়। এ বছর এই দিবসের প্রতিপাদ্য ছিল “প্রতিদিন ডিম খাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াই”। পল্লী-কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর আর্থিক সহায়তায় এ কর্মসূচির আয়োজন করে প্রয়াসের প্রাণিসম্পদ ইউনিট।